হেক এগরে চিনে নুয়ারলু

হেক এগরে চিনে নুয়ারলু আজিsamd-1
ঠইগরে আংকরতে তাউ মুছল আহির পিচুম, অন্থকপা বেদিশা এরে
পথে ধুলি খারি’ল বাসিয়া থাইলু
লেইরাপা গাঙর ঝোপে-ঝারে, নেন্নাম শপার কাচা-নুংশি
গতগ সকিয়া যারগা বৌহানরে মাতুরি, তুমি চিনোরাইতা”
উত্তরর আগে আগে আধারহানে গুরে দিল তাঙর মেইথঙ।
হাব্বি কথার মেয়েক, হাব্বি এলার সুর আকিদিন
চালহানাৎ ঝরং ঝরং, আকিদিন নিংশাগির ইত্তাউ মালয়া বারো
বিতরর গরে
হেক এগরেতে চিনে নুয়ারলু, কুরাংত আহিছে হারনেই
দেহগর সপ্তসুরে নিজরে বাদানি লেপুইল, মি খামকরে নুয়ারলু।

উজ্জার নাজ্জার

লমং বুলল কুমেই-আহার রাগাগদে চেয়া খল্লিক আগ জিংতা অনা চেইল পারা, আকমু করে ভাবক হাবিক ঘুম-মাঙনার রাতিনঙেইর চপ্ ক উবা আহির পাতার তলে গিয়া তিঙে তিঙে থানার হপন, জিঙে জিঙে যানার হপন… আহং বুলল মাতৌ অহার ওয়াহি অগির উমে জারে বিবুলা ইল একাল-ওকাল, আকাশ পাতাল।

কন্নিংঙহানি

কন্নিংঙহানি খতকরিয়া থইলু কৌটা আগৎ, তি আহিলে কাঠিনকুনচন্দনে বামুনশৌগ পারা, মিয়ৌ সেঙ-সেঙ ইয়া সেঙসেঙর খিরি আগণো পানি নিয়া তুলসীপুঙে সিকদেয়িমকা করে, এ জরমে দিনএহানি করজোড়ে আহির পানির মুর গাতিয়া গেলগা, রাতি ইলে বিয়ান ফুইলে হাবির আগে কুকুর আগই তুলসীপুঙে আয়া… কন্নিঙহানি লুকিয়া থনা নাইব!

অণুকবিতা কতহান

‘অশ্রুতিমঙ্গল’

কথা আহান কথা দুহান মাতং বুলতে হাবির কানে পুঁজ পড়িলতা, না হুনানি অকরলাতা, মিহুলশপার ডেঙে ডেঙে তিন জনমর কোকিলাগি হেক মাঙুয়া আহির পানি বেলতারানাই … আজি মিতে লেপুইছুগ, নাপুইছুগ ধূলির লগে… রাঙা রাঙা আহিগিনো চেয়া থাকা রাজা উজির সৈন্য হাবি… কাদতে কাদতে জলগ অনার হপন অহান জিংতা ইয়া থাক আজিকা…

‘পাহুরলেই’

পাহুরলেই তি নেইলে বারো নেইলু মিয়ৌ, হাকেদে শাতর তারাগি জঙিল উরে, ঘাটর পানির হতগ মাঙুইল, আত্তির পারাৎ দুপ্‌গাছ মরিল… পাহুরলেইতে ব্রত বাগিল, শোলোক ভুল ইল, অটগিৎ থার আতরর রঙ দুরেই থেয়ুয়িল… পাহুরলেই আহিগি কানুইল, আহির পাতার থিরিথিরি নাচন লমিল, আহির পানির ইংপা বানার মাতৌ খামুইল…

‘নেই অগদে যানার সালে’

নেই অগদে যানার সালে তালে তালে হাব্বি নিয়া আতর তারাৎ, পেইলে ডালেদেংগা করে নেই অগদে… নেই অগদে হাব্বি আছে, রৌ আহানর আগর নিংশাঅগর সাদে, আহির তারার ঠারর সাদে, একলব্যর কারর সাদে নেই অগদে… নেই অগদে থাম্পালগর মুকচি আহান, নিঙলপরীর ভনিতা ভান, আগন মাহার রাঙিলা ধান, থানার সালে, নেই অগরাং যানার সালে, নেই-নদীহার হত্‌ অগদে…

‘কদমশপার তলে’

কদমশপার তলে জঙের অশ্রুফুলর কুড়ি কইগ, বাঁশি আগর হেকে পাতা নাচুয়ারতা ডেঙে ডেঙে, কাদার যমুনাহার তলে বুরিছিল কুন নৌকা আগর টুমা টুমা, হাকর রাঙা দলা মেঘে রেখা ত্রিভুজ… মোরে নেগা তোর উমহার ভিতরেদে… মোরে লীন কর তোর ভক্তির রসাতলে… কদমশপা অহার তলে…

কবিতা তিনহান

দাংগ

দাংগ, আকদিন আমার দেয়ালগৎ
তোর পানার মাতাং খানি লাগিয়া আছিল
কী মলিনহান
অদিন য়ারি কিত্তা নাদিয়া হাতে হাতে
নিকদে নিকদে
গেলেগা
অহার পরে কতদিন গেলগাতা
আবোকচা বিল্ডিং ইল গাঙে
পংতলশপা লেহাউশপার গজে গজেদে
বারো
ডিগল নিংশার বৌয়ে
গারিগি চিকুয়া থার আজি

পানার মাতাং অতা এপাগাউ আমার
দেয়ালগৎ লাগিয়া আছে
মুকসি দিয়া দিয়া…

ইদুর আগই

অন্থকপা ইদুর আগই
ধানর হাদিদে আজি করের ইঙ্গিত
তার লেজে বারি খেয়া জঙিয়া পড়ের ধান
নঙিয়া চারঙহানি সুপিলা মাটিৎ

অন্থকপা ইদুর আগই
টুমা টুমা করে দিল মানুর মিমাঙ
পথ ঘর খিল্‌কি দুয়ার
আত্‌করে গাটিয়া আমি ঘুমিয়া থাইলাং

আকদিন মড়া পুড়ানির ঘাটেৎত

আকদিন মড়া পুড়ানির ঘাটেৎত
পৌ আহান আহিতই

তি খিল্‌কিহান আংকরিয়া থইস
এলা হুনে হুনে
রাসে দেহিছিলে তালবাগুরি
বৃন্দার শাতহান নিংশিঙ ইয়া ইয়া
থাইস

বাঁশির হেক আগ
তাল কতহান
য়ারি আহান

পৌ আহান আহিতইগ হে
জিংতা অনার

নুয়া করে চিনুরি মেয়েক

০১
যে ঠারে মাতুরি কথা, অহানই ঠারহান নাবে
মেয়েকে মেয়েকে শাত’পারের যে ঠার তার জিঙে
আরাক আহান থার বিতরে বিতরে – বাগাচুরা
ফঙেদে হাজানি নার শৃংখলার দুনিয়ার ডরে
আহিগি দেহের ঠার, কানহানি হুনের ঠার, প্রানে
তঙাল ধমনিপথে নিয়ত ঠারর আনাগোনা
ইংগ ইয়া থাইলেউ থাউরি গোপন ঠারে ঠারে
মোর দেহ এগ নিজে মুর্তিমান ঠারভাগবান।

মেয়েকর দাগে দাগে হাজিয়া যে অর্থ নিকুলের
অহানই নাবে অর্থহান; জনমজঞ্জালে, ঘামে
রকতে রকতে তার যে চিন মাঙর, থায়া থায়া
ফঙর তা চিকারিনো, ইকরের নুয়া করপেখ
মি তার বিতরে গিয়া নুয়া করে চিনুরি মেয়েক।
০২
ডাঙরিয়া বিয়ানহান, আধারর বুনি পিতে পিতে
বলিয়ে পাংকালে আজি মারংকাইছে হাবি তোর
ইঙাল মিঙালে রঙে হাজায়িলে মেঙসেল অহান
নিজ শাত চেয়া চেয়া মানু এতা কালাকপেলুইলা
তাঙর আহির তলে মাঙুইল আধার, -আহেই নে
বেনিগরে হমাদিক, মাঙপা রাতির যত ছাপ
মন্তরোনো মুকাদিক বিতরেত আকিহান করে।

ডাঙরিয়া হে বিয়ানহান, অতা বুলিয়া হাবি না
পাহুরেবেলিস, যে আধারস্তন্যে খৌনুগ বুজিলে
তার দান হুজানির কালে বার পিছবুলা নাদিছ
পিছেদেউ রক্ষা নেই, আহি মেলিতারা যত লাশ
বর্তমানে -চারিয়বারাদে তার থ’ছে ইতিহাস।
০৩.
তি ছাড়া কৃষ্ণরে মিতে নাউ চিনলু অউস হে রাধা
তোর অন্তরর পথে আতে আতে তার গরে যানা
উঠান মাংকল নাচিনিয়া চেয়া থাইলে মরে
দেউরি প্রবোধ -তিয়ৌ পথরুদ্ধকালে তারে নাউ
চিনেছিলে, ডাকাইতগো মালুয়া যেগই হাবি তোর
কারুনিয়া নিলগা, তা হাবিতানো আয়া বারো তোর
বিতরেই নেরগা জরম, তার জন্ম দিতে দিতে
রচিলে তি তার লগে অভিসার মিলন বিরহ…

নিজর লগেই মোর বিরহ মিলন অভিসার
হুদ্দা এরে ধুলি মাটি হিসাবর সংসারে তি রাধা
দুরিপা কৃষ্ণরে মোর হাজয়িলে হৃদয়মান্ডপে
মি তারে চিনুরি, দোর আতলো তার সকুরি চরণ
দি ইলে গোপীচান অউরি মি হরিনারায়ণ।